Click Here to Verify Your Membership
Desi আমার বিবাহিত বোন সঙ্গে সেক্স

আমার বিবাহিত বোন সঙ্গে সেক্স

Quote

আমি আবার জীবনের একটা গোপনীয় ঘটনা আজ আপনাদের বলতে যাচ্ছি। আমার বয়স তখন ১৯।
আমরা কুমিল্লায় থাকি। আমি চিটাগাং একটা ভাল কলেজে ভর্তির সুযোগ পেলাম। আর চিটাগাঙে আমার বড় আপুর বিয়ে হয়েছে। আমার বোন আমার থেকে ৬ বছরের বড়। আমি আমার আপুকে অনেক ভালবাসতাম, ছোটবেলা আমরা একসাথে খেলা করতাম, আপু কোথাও গেলে আমাকে সাথে নিয়ে যেত। তাই ঠিক হল আমি চিটাগাঙে কলেজে ভর্তি হব আর আপুর বাসায় থাকব।
একদিন সব গুছগাছ করে বড় আপুর বাসায় চলে গেলাম। আপু জানত আমি আসব কেননা বাবা আগেই আপুকে বলে রেখেছে। আপু আমাকে দেখে খুব খুশী হল আমাকে জড়িয়ে ধরল। আমি ঘুরে ঘুরে আপুর বাসা দেখতে লাগলাম। তিন রুমের ছোট বাসা। আমি দুলাভাইয়ের কথা জিজ্ঞাসা করলাম। আপু বলল তোর দুলাভাই তিন মাসের ট্রেনিং করতে ভারতে গেছে। তুই এই সময়ে এসে ভাল হয়েছে আমি একা একা মেয়ে মানুষ থাকি। আপুর একটা ৯ মাসের ছেলে আছে।
যেহেতু দুলাভাই এখন নাই আর ছোট বাসা তাই আপু আমাকে তার সাথে একই বিছানায় তার বাচ্চার পাশে রাতে ঘুমাতে বলল। বাচ্চাকে আমাদের দুজনের মাঝে রেখে ঘুমালাম। সবকিছু স্বাভাবিকভাবেই চলছিল। কিন্তু ঘুমে আমি আমার আপুকে নিয়ে স্বপ্ন দেখলাম যে আপু আমাকে জড়িয়ে ধরে চুমু খাচ্ছে। সকালে আমার ঘুম ভেঙ্গে গেলে আমি স্বপ্নের কথা ভেবে লজ্জা পাচ্ছিলাম। আমি পাশে তাকিয়ে দেখলাম আপু তখনও ঘুমুচ্ছে। আপুর শাড়ির আচল বুক থেকে সরে গেছে, আর তার নিঃশ্বাসের সাথে তার দুধ উঠা নামা করছে। আপুর দুধ তার ব্লাউজ থেকে বের হয়ে আসতে চাইছে। আপু ভিতরে কোন ব্রা পরে নাই মনে হয় বাচ্চাকে রাতে দুধ খাওয়ায়। আপুর দুধের বোটা বোঝা যাচ্ছে। আমার ভিতর এক অজানা শিহরন বয়ে গেল। আমি আপুর শরীর দেখতে লাগলাম।
হঠাৎ আপু চোখ মেলে তাকাল। আপু তার ঘুম জড়ানো চোখে বুঝতে পারল না যে আমি তার শরীরের দিকে তাকিয়ে ছিলাম। আমি স্বাভাবিকভাবে আপুকে বললাম, গুড মর্নিং আপু। আপুও বলল, গুড মর্নিং দিপু, এত সকালে ঘুম ভেঙ্গে গেল তোর? আমি হেসে বললাম নতুন জায়গা নতুন বিছানায় শুয়েছিলাম তাই মনে হয় তারাতারি ঘুম ভেঙ্গে গেছে। আপু বুঝল তার শাড়ির আচল সরে গেছে কিন্তু কোন তাড়াহুড়া না করে স্বাভাবিক ভাবে আচল দিয়ে তার মূল্যবান বুক ঢেকে দিল।
আমি হাত মুখ ধুয়ে ফ্রেশ হলাম। আপুও ফ্রেশ হয়ে নাস্তা বানাল, আমরা একসাথে নাস্তা করলাম। আপু ঘরের কাজে ব্যাস্ত হয়ে গেল। আমি বসে বসে একটা গল্পের বই পড়তে লাগলাম। দুপুর ১১ টার দিকে আমি আপু কি করছে দেখার জন্য আপুকে খুজতে তার রুমে গেলাম। আমি দেখলাম আপু বাথরুমে তার বাচ্চাকে গোসল করাচ্ছে।
আপু আমাকে দেখে হেসে বলল, কিরে দিপু ভাল লাগছে না।
আমি বললাম, না ঠিক তা না তুমি কি করছিলে দেখতে আসলাম ভাবলাম তোমার সাথে গল্প করি আর তোমার কাজে সাহায্য করি।
আপু বলল, তুই যখন ছোট ছিল তখন আমি তোকে এইভাবে গোসল করিয়ে দিতাম। আর তুই আমার সামনে তোর কাপড় খুলতে লজ্জা পেতি।
আমি বললাম, হ্যাঁ আপু আমার মনে পরে তুমি যখন আমাকে গোসল করাতে আমি কান্না করতাম। এখনও মনে হয় কেউ যদি আমাকে গোসল করিয়ে দিত তোমার মত তাহলে ভাল হতো। আমার নিজে গোসল করতে ভাল লাগে না।
আপু হেসে বলল, ওকে আমার লক্ষ্মী সোনা ভাই আমি তোমাকে গোসল করিয়ে দিব। তোর যা কিছু লাগে আমাকে বলবি।
আমি অবাক হয়ে ভাবতে লাগলাম, আপু এখনও আমাকে অনেক ছোট আর ভদ্র ভাবছে। আমি সাহস করে বললাম ঠিক আছে আপু তোমার বাচ্চার গোসল শেষ হলে আমাকে গোসল করিয়ে দিও। এটা বলে ভাবলাম আপু মনে হয় আমাকে বকা দিবে।
আপু বলল, ঠিক আছে দিপু তুই ঘরে গিয়ে বস আমি শেষ হলে তোকে ডাক দিব।
আমি নিজেও বুঝতে পারছি না কি হবে সত্যি কি আপু আমাকে গোসল করিয়ে দিবে। আমি রুমে এসে বসে নানা কথা ভাবতে লাগলাম। আপু কিভাবে আমাকে গোসল করাবে, আর আপু কি সত্যি বুঝতে পারছে না আমি এখন আর ছোট নেই। আমি আপুর গলা শুনলাম আমাকে ডাকছে। আমি আপুর কাছে যেতেই আপু বলল, আগে বাবুকে ঘুম পাড়িয়ে নেই তারপর তোকে গোসল করিয়ে দিব।
আমি বললাম ঠিক আছে আপু, আর আবারও ভাবতে লাগলাম আমি কি আপুর সামনে আমার এই ভদ্রতার মুখোশটা ধরে রাখতে পারবো, আমি কি আমার উত্তেজনা কন্ট্রোল করতে পারব। শিট! এইসব ভাবতেই আমার ধন শক্ত হয়ে উঠল। ওহ আমি কি করব, এমন সময় আপু আমাকে আবার ডাক দিল।
আমি গিয়ে দেখলাম আমি বাথরুমে আমার জন্য অপেক্ষা করছে। আমি বাথরুমের ভিতরে গেলাম। আপু সকালের সেই শাড়ি পড়েই আছে। তবে শাড়িটা নিচ থেকে কিছুটা উঠিয়ে কোমরে গুজে নিয়েছে। এতে আপুর পা পুরা আর থাইয়ের কিছু অংশ দেখা যাচ্ছিল। আমি বাথরুমের ভিতরে যেতেই আপু কোন কথা না বলে আমার গেঞ্জি খুলে দিল। এরপর আমার পাজামার ফিতা খুলে পাজামা নিচে নামিয়ে দিল। আমি শুধু জাঙ্গিয়া পরে আপুর সামনে এখন।
আমাকে অবাক করে আপু আমার জাঙ্গিয়া টেনে নামাতে লাগল। আমি বাধা দিলাম জাঙ্গিয়া খুলতে। আপু হেসে বলল, “আরে দিপু জাঙ্গিয়াটা খোল, তোর সেই লজ্জা এখনও আছে, আমি তোকে কতবার ন্যাংটা দেখেছি?”
আমি বললাম, “আরে আপু আমি তখন তো ছোট ছিলাম, কিন্তু এখন আমি বড় হয়ে গেছি”।
আপু বলল, “আমি জানি আমার ছোট দিপু এখন বড় হয়ে গেছে তোর লম্বা লম্বা পা আছে, লম্বা হাত আছে, আর এটাও জানি তোর ছোট নুনু লম্বা হয়ে বড় হয়ে গেছে” আমি আপুর কথা শুনে আর কিছু বলতে পারলাম না আপু আমার জাঙ্গিয়া খুলে পুরা ন্যাংটা করে দিল।
আমার ধন উত্তেজনায় শক্ত হয়ে খাড়া হয়ে আছে। আপু হেসে বলল, “দিপু লজ্জার বা বিব্রত হবার কিছু নেই এটা স্বাভাবিক” এরপর আমার শরীরে পানি ডালতে লাগল। এরপর আমার সারা বুকে হাতে সাবান মেখে দিতে লাগল। আপু আমাকে ঘুরে পিছন ফিরে দাড়াতে বলল, আমি পিছনে ঘুরে দাড়াতেই আপু আমার পিঠে পায়ে সাবান মাখাল। এরপর আমার পাছায় সাবান মাখাতে মাখাতে দুই পাছা ফাক করে ভিতরের অংশে হাত দিয়ে সাবান মাখতে লাগল। আমার ধন উত্তেজনায় শক্ত হয়ে লাফাতে লাগল। আমি হাত দিয়ে আমার ধন ধরে রাখলাম যাতে আপু কিছু বুঝতে না পারে।
আপু আবার আমাকে তার দিকে ঘুরতে বলল এরপর আমার বুকে মাথায় পায়ে সাবান মেখে আমার ধনের সামনে এসে বলল, হাত সরিয়ে নিতে আমার ধনের উপর থেকে। আমি হাত সরালাম না। আপু এবার একটু ধমক দিয়ে বলল হাত সরিয়ে নিতে। আমি হাত সরিয়ে নিতেই আপু আমার ধন তার এক হাতে ধরে আগে পিছে করে সাবান মাখতে লাগল, আর অন্য হাত দিয়ে আমার ধনের বিচিতে সাবান মাখতে লাগল। আপুর হাতের ম্যাসাজে আমি আর নিজেকে কাবুতে রাখতে পারলাম না।
আমি অনেক চেষ্টা করেও পারলাম না, চিরিক চিরিক করে আমার ধনের মাথা দিয়ে মাল বের হয়ে আপুর মুখে গিয়ে পড়ল। আপু রেগে গিয়ে বলল, “ইডিয়ট, তোর কোন কন্ট্রোল নাই?”
আপু উঠে ঘুরে আয়নায় নিজেকে দেখে হাসতে হাসতে বলল, দেখ দিপু তুই আমার কাপড় কি করেছিস? আমি দেখলাম আমার মাল তার মুখ বেয়ে তার শাড়ি আর ব্লাউজে পড়েছে। আপু বলল, “এখন আমাকেও গোসল করতে হবে”।
এরপর সে আমার শরীরে পানি ঢেলে গোসল করিয়ে দিল, এরপর আমাকে একটা তোয়ালে দিয়ে বাহিরে যেতে বলল।
আমার মাথায় তখন দুষ্টামি খেলতে লাগল আমি বললাম, “আপু, তুমি আমাকে ন্যাংটা দেখেছ এমনকি আমার সারা শরীরে স্পর্শ করেছ। আমিও তোমার গোসল করা দেখব”।
আপুর তখন মনে হল আমি বড় হয়ে গেছি। আপু বলল, “ঠিক আছে, শুধু দেখবি কিন্তু আমাকে ছুতে পারবি না”।

Quote

এই বলে আপু তার শাড়ি খুলে ফেলল। এরপর ব্লাউজ খুলল। আপুর দুধ দুটা অসম্ভব সুন্দর। ইচ্ছে করল মুখে নিয়ে চুষি। আমি বললাম, আপু তোমার দুধ দুটা অনেক সুন্দর। আমি তোমার বাচ্চা হলে চুষে খেতে পারতাম।
আপু লজ্জায় লাল হয়ে বলল, “তুই কথা বন্ধ করবি না হলে এখান থেকে বের করে দিব”। এরপর আপু তার পেটিকোট খুলে পুরা ন্যাংটা হয়ে গেল।
আমি চোখ বড় করে আপুর নগ্ন শরীরের সুধা পান করতে লাগলাম। আপু আমার অবস্থা দেখে আবারও লজ্জা পেল।
আমি বললাম, “আপু তুমি অনুমতি দিলে আমি কিছু বলতাম। আপু রাজী হল। আমি বললাম তোমার পাছাটা দারুন ইচ্ছে করে তোমার পাছার উপর মাথা রেখে ঘুমাই। আর তোমার ভোদার বালগুলো দেখতে অনেক সুন্দর পাতলা আর সিল্কি”।
আপু আমার কথা শেষ হতেই বলল, “এবার তুই এখান থেকে যা” আমাকে ধাক্কা দিয়ে বাথরুম থেকে বের করে দিয়ে দরজা ভিতর থেকে বন্ধ করে দিল। আমি বাথরুমের বাইরে নিরাশ হয়ে দাড়িয়ে থাকলাম।
আমি মনে মনে ভাবলাম কিছু করতেই হবে। আমি কিচেনে যেয়ে ন্যাংটা হয়ে দাড়িয়ে রইলাম। কিছুক্ষন পর আপু গোসল শেষ করে শুধু পেটিকোট তার দুধের উপর পরে তার দুধ ঢেকে বের হয়ে আসল। তার থাই পুরা দেখা যাচ্ছে। আপু আমাকে কিচেনে ন্যাংটা দেখে অবাক হয়ে বলল, “এই ইডিয়ট, এখানে কি করছিস যা রুমে গিয়ে কাপড় পড়”।
আমি বললাম, “আমি কি তোমাকে কোন ডিস্টার্ব করেছি? আমার ন্যাংটা থাকতে ভাল লাগছে”।
আপু বলল, “ঠিক আছে তোর যা ভাল লাগে কর” এরপর আপু রান্না করা শুরু করল।
আমি আপুর পিছনে গিয়ে দাঁড়ালাম। আমার শক্ত হয়ে থাকা ধন আপুর পাছায় লাগল।
আপু চিৎকার করে বলে উঠল, “এই দিপু কি করছিস?”

আমি বললাম, “কেন? যদি আমি তোমাকে আমার হাত দিয়ে ছুই, তুমি কিছু মনে কর না, কিন্তু আমি আমার এটা (ধন) দিয়ে তোমাকে ছুলাম, তুমি চিৎকার করে বকতে শুরু করলে”।
আপু বলল, “ কিন্তু তুই আমার পাছায় স্পর্শ করছিস, সেটা হাত হোক আর তোর ধন হোক আমি এটা মেনে নিব না”।
আমি এবার ইচ্ছে করে আমার ধন তার হাতে ছোঁয়ালাম। আপু বুঝতে পারল আমি তার সাথে খেলছি, সে আমার ধন হাত দিয়ে ধরে জোরে মুচড়ে দিল। আমি চিৎকার দিলাম।
আপু বলল, “যদি তুই আমার কাছে আবার আসিস, তবে আবার তোর ওটা চেপে ভর্তা করে দিব”। এরপর আপু আবার রান্নায় ব্যাস্ত হয়ে গেল।
আমি আবার আপুর পিছনে গিয়ে দাঁড়ালাম তারপর পেটিকোট উচু করে তার পাছা দেখতে লাগলাম। আপু তারাতারি তার পেটিকোট নামিয়ে দিল।
আমি বললাম, “গোসলের সময় তোমার ন্যাংটা শরীর আমাকে দেখালে তবে এখন লজ্জা পাচ্ছ কেন?”
আপু বলল, “দিপু, দয়া করে এখান থেকে চলে যা। তুই আমাকে উত্তেজিত করে দিচ্ছিস তোর দুলাভাইয়ের কথা মনে পরছে। আমি তোর সাথে কিছু করতে পারব না। আর তুই এরকম করতে থাকলে আমি আর নিজের উপর কন্ট্রোল রাখতে পারব না তাই তুই এখান থেকে চলে যা”।
আমি আপুকে জড়িয়ে ধরে তার ঠোটে চুমা দিতে লাগলাম। আপু আমাকে ধাক্কা মেরে সরাতে চেষ্টা করছে। আমি আপুর পেটিকোট তোলে আমার ধন তার ভোদার সাথে ঘষতে লাগলাম। আর এতেই আপু কাবু হয়ে আমাকে জড়িয়ে ধরে তার মুখ ফাক করে আমার জিহ্বা তার মুখে ঢুকতে দিল। আমি আমার হাত দিয়ে তার পিঠে হাত বুলাতে লাগলাম। এরপর পেটিকোটের ফিতা টান মারতেই পেটিকোট নিচে পরে গেল। আমি আপুকে জোরে জড়িয়ে ধরে আবার চুমা দিতে লাগলাম।
আমি এবার আপুর দুধ টিপতে লাগলাম আর মাথা নিচু করে তার দুধের বোটা মুখে নিয়ে চুষতে লাগলাম। কি বলব দারুন স্বাদ আপুর বোটা দিয়ে তির তির করে দুধ বের হচ্ছে আর আমি চুষে খাচ্ছি। আমি আপুকে দুই হাতে তুলে নিয়ে কিচেনের টেবিলে বসিয়ে তার ভোদার চারপাশে চুমা দিতে লাগলাম। তারপর জিহ্বা ভোদার ভিতর ঢুকায়ে চুষতে লাগলাম। আপুর ভোদা অনেক গরম আর রসে ভরে গেছে। আমি আপুর ভোদার ভিতরে জিহ্বা দিয়ে চাঁটার কারনে আপু কিছুক্ষনের মধ্যেই আমার মুখে তার ভোদার রস ঢেলে দিল। আমি চেটে পুরা রস খেয়ে নিলাম। এবার আমি আমার ধন আপুর ভোদায় ঢুকানোর জন্য ভোদার মুখে ফিট করলাম।
আপু তখন বলল, না দিপু আমার ভোদা তোর দুলাভাইয়ের জন্য। তুই বরং আমার পাছার ছেদায় ঢুকা। আমি আপুর মনের অবস্থা বুঝে আমার ধন তার পুটকির ছেদায় ঢুকানোর চেষ্টা করতেই আপু চিৎকার করে বলল, আরে গাধা, আগে পিছলা করে নে, নাহলে ভিতরে ঢুকবে না।
আমি হেসে আপুর পাছায় চুমা দিয়ে তার পুটকির ছেদা চুষতে লাগলাম আর মাঝে মাঝে একটা আঙ্গুল আস্তে আস্তে ঢুকাতে লাগলাম। এরপর আমি আমার জিহ্বা তার পুটকির ছেদায় ঢুকাতে বের করতে লাগলাম। কিছুক্ষন পর আপু বলল এবার হয়ছে, তারপর নিচু হয়ে বসে আমার ধন মুখে নিয়ে চুষতে লাগল আর আমার ধনের বিচি টিপতে লাগল। আপু তার এক হাতের আঙ্গুল আমার পুটকির ছেদায় ঢুকাতে লাগল। আমি বললাম, উঃ আপু থাম তুমি এভাবে চুষলে, টিপলে আমার মাল বের হয়ে যাবে।
আপু এবার চোষা বন্ধ করে আমাকে বলল, ঠিক আছে তাহলে, এবার ঢুকা। আমি আমার শক্ত ধনের মাথা আপুর পুটকির ছেঁদায় রেখে আস্তে আস্তে চাপ দিতে লাগলাম। ধনের মাথা পুরা ভিতরে যাওয়ার পর আমি জোরে ধাক্কা দিয়ে পুরা ধন ঢুকায়ে দিলাম। এরপর আমি জোরে জোরে আপুর পুটকি মারতে লাগলাম। আপু আমাকে জড়িয়ে ধরে আছে আর চুমা দিচ্ছে আর আমি দাড়িয়ে দাড়িয়ে ঠাপ মারছি।
কিছুক্ষণের মধ্যে আমার মাল বের হবার সময় হয়ে গেল। আমি বললাম, আপু আমার মাল বের হবে, আমার মাল বের হচ্ছে উঃ উঃ উঃ আঃ। আপু হাত দিয়ে আমার ধন বের করে নিতেই আমার মাল চিরিক করে আপুর পেটে আর ভোদার চারপাশে পড়তে লাগল। আপু হেসে আমাকে জড়িয়ে ধরে চুমা দিল। তারপর আমরা দুজনে একসাথে বাথরুমে গেলাম। আপু আমার ধন পানি দিয়ে ধুয়ে দিল এবং নিজেও পরিস্কার হল।
আমি আপুকে বললাম, তুমি একটু বাইরে যাবে, আমি পেশাব করব। আপু হেসে বলল, এটা আবার নতুন কি?
আমি বললাম, আচ্ছা তোমার আপত্তি নাই তাহলে, এই বলে আমি তার শরীরে পেশাব করতে লাগলাম। আপু তারাতারি আমার সামনে এসে আমার ধন হাতে ধরে আমার দিকে ঘুরিয়ে ধরল। আমি কিছু বুঝে উঠার আগেই আমার পেশাব আমার শরীরে এসে পড়ল। এরপর আপু আমার থাই তার দুই পায়ের মাঝে চেপে ধরে পেশাব করতে লাগল। আপুর গরম পেশাব আমার থাইয়ে পরতেই এক শিরশির অনভুতি শরীরে বয়ে গেল।
আমি বললাম, আপু তুমি আমার শরীরে পেশাব করছ, সরে কর।
আপু বলল, আচ্ছা তোর এটা ভাল লাগছে না, এই বলে আপু আমাকে ধরে নিচে বসিয়ে আমার মুখে পেশাব করতে লাগল। আমি চিৎকার করলাম আপু তুমি কি করছ, কিন্তু আমার খুব মজা লাগছিল। এরপর আমরা আবার গোসল করে ফ্রেশ হলাম। তারপর দুপুরের খাওয়া দাওয়া করে ঘুমালাম।
তখন থেকে আপুর সাথে আমার অবৈধ সম্পর্ক চলছে। সুযোগ পেলেই আমরা সেক্স করি আপুও আগের থেকে অনেক বেশী সেক্সি হয়ে উঠেছে।
“হমমম, সুন্দরী! অবশই দেব| তবে একটাই শর্ত”
-”কি?”
-”তোমাকে আমার খেলার পুতুল হয়ে যেতে হবে! যখন ইচ্ছা, যেভাবে ইচ্ছা আমি তোমায় নিয়ে খেলবো| কোনো বেগরবাই করা যাবে না!”
-”ইশশ, ” সংযুক্তা ঠোঁট কামড়িয়ে হাসে-” কি অসভ্য,” তারপর কি ভেবে হেসে রতিকান্তের ঠোঁটে চুমু খায় “উম্ম, থ্যাঙ্ক ইউ স্যার, কবে থেকে মুভ করবো?”
-”কালকেই চলে আসো আমার রূপসী পরি! ” নিজের আসন্ন সৌভাগ্যের কথা ভেবে সংযুক্তার যোনির মধ্যে রতিকান্তের লিঙ্গ আবার শত হয়ে উঠতে থাকে “উম্মমম ” তিনি ওর ঠোঁটে ঠোঁট রেখে নিজের শক্ত লিঙ্গের দ্বারা ওর যোনির মধ্যে জোরে মোচড় দেন|
-”আউচ!! উমমম” সংযুক্তা হেসে ওঁর গলা দুবাহু দিয়ে মালার মতো জড়িয়ে ধরে| ওঁর স্থুল কোমরের উপর দুই পা তুলে দিয়ে পুনরায় ওঁকে তাকে মন্থন করতে সাহায্য করে|…
-সমাপ্ত-

Quote

(05-04-2017, 09:13 AM)rajbr1981 : এই বলে আপু তার শাড়ি খুলে ফেলল। এরপর ব্লাউজ খুলল। আপুর দুধ দুটা অসম্ভব সুন্দর। ইচ্ছে করল মুখে নিয়ে চুষি। আমি বললাম, আপু তোমার দুধ দুটা অনেক সুন্দর। আমি তোমার বাচ্চা হলে চুষে খেতে পারতাম।
আপু লজ্জায় লাল হয়ে বলল, “তুই কথা বন্ধ করবি না হলে এখান থেকে বের করে দিব”। এরপর আপু তার পেটিকোট খুলে পুরা ন্যাংটা হয়ে গেল।
আমি চোখ বড় করে আপুর নগ্ন শরীরের সুধা পান করতে লাগলাম। আপু আমার অবস্থা দেখে আবারও লজ্জা পেল।
আমি বললাম, “আপু তুমি অনুমতি দিলে আমি কিছু বলতাম। আপু রাজী হল। আমি বললাম তোমার পাছাটা দারুন ইচ্ছে করে তোমার পাছার উপর মাথা রেখে ঘুমাই। আর তোমার ভোদার বালগুলো দেখতে অনেক সুন্দর পাতলা আর সিল্কি”।
আপু আমার কথা শেষ হতেই বলল, “এবার তুই এখান থেকে যা” আমাকে ধাক্কা দিয়ে বাথরুম থেকে বের করে দিয়ে দরজা ভিতর থেকে বন্ধ করে দিল। আমি বাথরুমের বাইরে নিরাশ হয়ে দাড়িয়ে থাকলাম।
আমি মনে মনে ভাবলাম কিছু করতেই হবে। আমি কিচেনে যেয়ে ন্যাংটা হয়ে দাড়িয়ে রইলাম। কিছুক্ষন পর আপু গোসল শেষ করে শুধু পেটিকোট তার দুধের উপর পরে তার দুধ ঢেকে বের হয়ে আসল। তার থাই পুরা দেখা যাচ্ছে। আপু আমাকে কিচেনে ন্যাংটা দেখে অবাক হয়ে বলল, “এই ইডিয়ট, এখানে কি করছিস যা রুমে গিয়ে কাপড় পড়”।
আমি বললাম, “আমি কি তোমাকে কোন ডিস্টার্ব করেছি? আমার ন্যাংটা থাকতে ভাল লাগছে”।
আপু বলল, “ঠিক আছে তোর যা ভাল লাগে কর” এরপর আপু রান্না করা শুরু করল।
আমি আপুর পিছনে গিয়ে দাঁড়ালাম। আমার শক্ত হয়ে থাকা ধন আপুর পাছায় লাগল।
আপু চিৎকার করে বলে উঠল, “এই দিপু কি করছিস?”

আমি বললাম, “কেন? যদি আমি তোমাকে আমার হাত দিয়ে ছুই, তুমি কিছু মনে কর না, কিন্তু আমি আমার এটা (ধন) দিয়ে তোমাকে ছুলাম, তুমি চিৎকার করে বকতে শুরু করলে”।
আপু বলল, “ কিন্তু তুই আমার পাছায় স্পর্শ করছিস, সেটা হাত হোক আর তোর ধন হোক আমি এটা মেনে নিব না”।
আমি এবার ইচ্ছে করে আমার ধন তার হাতে ছোঁয়ালাম। আপু বুঝতে পারল আমি তার সাথে খেলছি, সে আমার ধন হাত দিয়ে ধরে জোরে মুচড়ে দিল। আমি চিৎকার দিলাম।
আপু বলল, “যদি তুই আমার কাছে আবার আসিস, তবে আবার তোর ওটা চেপে ভর্তা করে দিব”। এরপর আপু আবার রান্নায় ব্যাস্ত হয়ে গেল।
আমি আবার আপুর পিছনে গিয়ে দাঁড়ালাম তারপর পেটিকোট উচু করে তার পাছা দেখতে লাগলাম। আপু তারাতারি তার পেটিকোট নামিয়ে দিল।
আমি বললাম, “গোসলের সময় তোমার ন্যাংটা শরীর আমাকে দেখালে তবে এখন লজ্জা পাচ্ছ কেন?”
আপু বলল, “দিপু, দয়া করে এখান থেকে চলে যা। তুই আমাকে উত্তেজিত করে দিচ্ছিস তোর দুলাভাইয়ের কথা মনে পরছে। আমি তোর সাথে কিছু করতে পারব না। আর তুই এরকম করতে থাকলে আমি আর নিজের উপর কন্ট্রোল রাখতে পারব না তাই তুই এখান থেকে চলে যা”।
আমি আপুকে জড়িয়ে ধরে তার ঠোটে চুমা দিতে লাগলাম। আপু আমাকে ধাক্কা মেরে সরাতে চেষ্টা করছে। আমি আপুর পেটিকোট তোলে আমার ধন তার ভোদার সাথে ঘষতে লাগলাম। আর এতেই আপু কাবু হয়ে আমাকে জড়িয়ে ধরে তার মুখ ফাক করে আমার জিহ্বা তার মুখে ঢুকতে দিল। আমি আমার হাত দিয়ে তার পিঠে হাত বুলাতে লাগলাম। এরপর পেটিকোটের ফিতা টান মারতেই পেটিকোট নিচে পরে গেল। আমি আপুকে জোরে জড়িয়ে ধরে আবার চুমা দিতে লাগলাম।
আমি এবার আপুর দুধ টিপতে লাগলাম আর মাথা নিচু করে তার দুধের বোটা মুখে নিয়ে চুষতে লাগলাম। কি বলব দারুন স্বাদ আপুর বোটা দিয়ে তির তির করে দুধ বের হচ্ছে আর আমি চুষে খাচ্ছি। আমি আপুকে দুই হাতে তুলে নিয়ে কিচেনের টেবিলে বসিয়ে তার ভোদার চারপাশে চুমা দিতে লাগলাম। তারপর জিহ্বা ভোদার ভিতর ঢুকায়ে চুষতে লাগলাম। আপুর ভোদা অনেক গরম আর রসে ভরে গেছে। আমি আপুর ভোদার ভিতরে জিহ্বা দিয়ে চাঁটার কারনে আপু কিছুক্ষনের মধ্যেই আমার মুখে তার ভোদার রস ঢেলে দিল। আমি চেটে পুরা রস খেয়ে নিলাম। এবার আমি আমার ধন আপুর ভোদায় ঢুকানোর জন্য ভোদার মুখে ফিট করলাম।
আপু তখন বলল, না দিপু আমার ভোদা তোর দুলাভাইয়ের জন্য। তুই বরং আমার পাছার ছেদায় ঢুকা। আমি আপুর মনের অবস্থা বুঝে আমার ধন তার পুটকির ছেদায় ঢুকানোর চেষ্টা করতেই আপু চিৎকার করে বলল, আরে গাধা, আগে পিছলা করে নে, নাহলে ভিতরে ঢুকবে না।
আমি হেসে আপুর পাছায় চুমা দিয়ে তার পুটকির ছেদা চুষতে লাগলাম আর মাঝে মাঝে একটা আঙ্গুল আস্তে আস্তে ঢুকাতে লাগলাম। এরপর আমি আমার জিহ্বা তার পুটকির ছেদায় ঢুকাতে বের করতে লাগলাম। কিছুক্ষন পর আপু বলল এবার হয়ছে, তারপর নিচু হয়ে বসে আমার ধন মুখে নিয়ে চুষতে লাগল আর আমার ধনের বিচি টিপতে লাগল। আপু তার এক হাতের আঙ্গুল আমার পুটকির ছেদায় ঢুকাতে লাগল। আমি বললাম, উঃ আপু থাম তুমি এভাবে চুষলে, টিপলে আমার মাল বের হয়ে যাবে।
আপু এবার চোষা বন্ধ করে আমাকে বলল, ঠিক আছে তাহলে, এবার ঢুকা। আমি আমার শক্ত ধনের মাথা আপুর পুটকির ছেঁদায় রেখে আস্তে আস্তে চাপ দিতে লাগলাম। ধনের মাথা পুরা ভিতরে যাওয়ার পর আমি জোরে ধাক্কা দিয়ে পুরা ধন ঢুকায়ে দিলাম। এরপর আমি জোরে জোরে আপুর পুটকি মারতে লাগলাম। আপু আমাকে জড়িয়ে ধরে আছে আর চুমা দিচ্ছে আর আমি দাড়িয়ে দাড়িয়ে ঠাপ মারছি।
কিছুক্ষণের মধ্যে আমার মাল বের হবার সময় হয়ে গেল। আমি বললাম, আপু আমার মাল বের হবে, আমার মাল বের হচ্ছে উঃ উঃ উঃ আঃ। আপু হাত দিয়ে আমার ধন বের করে নিতেই আমার মাল চিরিক করে আপুর পেটে আর ভোদার চারপাশে পড়তে লাগল। আপু হেসে আমাকে জড়িয়ে ধরে চুমা দিল। তারপর আমরা দুজনে একসাথে বাথরুমে গেলাম। আপু আমার ধন পানি দিয়ে ধুয়ে দিল এবং নিজেও পরিস্কার হল।
আমি আপুকে বললাম, তুমি একটু বাইরে যাবে, আমি পেশাব করব। আপু হেসে বলল, এটা আবার নতুন কি?
আমি বললাম, আচ্ছা তোমার আপত্তি নাই তাহলে, এই বলে আমি তার শরীরে পেশাব করতে লাগলাম। আপু তারাতারি আমার সামনে এসে আমার ধন হাতে ধরে আমার দিকে ঘুরিয়ে ধরল। আমি কিছু বুঝে উঠার আগেই আমার পেশাব আমার শরীরে এসে পড়ল। এরপর আপু আমার থাই তার দুই পায়ের মাঝে চেপে ধরে পেশাব করতে লাগল। আপুর গরম পেশাব আমার থাইয়ে পরতেই এক শিরশির অনভুতি শরীরে বয়ে গেল।
আমি বললাম, আপু তুমি আমার শরীরে পেশাব করছ, সরে কর।
আপু বলল, আচ্ছা তোর এটা ভাল লাগছে না, এই বলে আপু আমাকে ধরে নিচে বসিয়ে আমার মুখে পেশাব করতে লাগল। আমি চিৎকার করলাম আপু তুমি কি করছ, কিন্তু আমার খুব মজা লাগছিল। এরপর আমরা আবার গোসল করে ফ্রেশ হলাম। তারপর দুপুরের খাওয়া দাওয়া করে ঘুমালাম।
তখন থেকে আপুর সাথে আমার অবৈধ সম্পর্ক চলছে। সুযোগ পেলেই আমরা সেক্স করি আপুও আগের থেকে অনেক বেশী সেক্সি হয়ে উঠেছে।
“হমমম, সুন্দরী! অবশই দেব| তবে একটাই শর্ত”
-”কি?”
-”তোমাকে আমার খেলার পুতুল হয়ে যেতে হবে! যখন ইচ্ছা, যেভাবে ইচ্ছা আমি তোমায় নিয়ে খেলবো| কোনো বেগরবাই করা যাবে না!”
-”ইশশ, ” সংযুক্তা ঠোঁট কামড়িয়ে হাসে-” কি অসভ্য,” তারপর কি ভেবে হেসে রতিকান্তের ঠোঁটে চুমু খায় “উম্ম, থ্যাঙ্ক ইউ স্যার, কবে থেকে মুভ করবো?”
-”কালকেই চলে আসো আমার রূপসী পরি! ” নিজের আসন্ন সৌভাগ্যের কথা ভেবে সংযুক্তার যোনির মধ্যে রতিকান্তের লিঙ্গ আবার শত হয়ে উঠতে থাকে “উম্মমম ” তিনি ওর ঠোঁটে ঠোঁট রেখে নিজের শক্ত লিঙ্গের দ্বারা ওর যোনির মধ্যে জোরে মোচড় দেন|
-”আউচ!! উমমম” সংযুক্তা হেসে ওঁর গলা দুবাহু দিয়ে মালার মতো জড়িয়ে ধরে| ওঁর স্থুল কোমরের উপর দুই পা তুলে দিয়ে পুনরায় ওঁকে তাকে মন্থন করতে সাহায্য করে|…
-সমাপ্ত-

taboobsex is part of a life.no hate

Quote





Online porn video at mobile phone


indian woman armpitskashmir sexy girlhinglish porn storychoot ke darshanTelugu lanjala Karke banta haitamil sexy aunty photostamil anty sex storysex kathalu telugu scriptadult hindi comicpir kaki tarchudai bhabhi kipadma sex storiesurdu font sexy khanipyari chutnude pics of prostitutemaa ka ganddps mms scandal videogarm lundtamil font dirty storiesboobs exbiishakeela boobs imagesmalayalam sex free videosexy mom ko chodaनशे में धुत्त भाइयों ने अपनी ही बहन के ही साथ xxnxsexy sotarykannada sec storiestamil sex novelsmom ki chutstories telugu sexचुलबुली चुतो की इंसेस्ट कहानियांmera mera gaon meri family aur mein writter fucker avihindi sex kathanew tamil sex storeyssex ammatamil sex stories in ammastories sex urdubhabhi ki chudai story in hinditelugu heroines sex storieshot mms scandlepel diyachachi chodcuckold husband picturesmausi ki marigirl playing with herself on webcamdesigirls clubbangladeshi boudi imagelatest desi sex storiesindian eex storiesaunty stories with photosdesibaba imagemy father seduced mesexy boudi phototelugu sex stories maradalu thosexy stories in marathi languagewww.amazingindiansdesi bhabhi moviesex stories in marathi fontbhabhi ki chudai sex storysexstories urduhindi sex stories in hindi fonttelugu sex aunty photossex hindi story bhabhireal life hot auntiesmaza baltkar zala marathi storylatest sexy urdu storieshot saree strippingbhai bahan ki kahanibhabhi nanad ki chudai ki bate incectgirls dressed and undressedkashmiri naked girlsnaukar ka lunddesi ladies exbiihot tamilsex storysex story in school in hindidesi bhabhi sex storiesurdu sexy storriesnidhi ki dastan exbiigay kahaniya