Click Here to Verify Your Membership
First Post Last Post
Incest মায়ের পুত্র বাংলা যৌন গল্প ( Mom Son Bengali Sex Story )

প্রথম অধ্যায়

১লা এপ্রিল, ২০১০
আজকের দিনটি আমার কাছে বিশেষ ও স্বতন্ত্র একটি দিন। আজ আমার মার জন্মদিন,আর আজই মার প্রথম জন্মদিন যেদিন তিনি আমার কাছে নেই। আজ পর্যন্ত মায়ের প্রাতিটি জন্মদিনের ভোরে তাঁকে আমি আমি আদর ও ভালবাসা জানিয়েছি, পৃথিবীর যে প্রান্তেই আমি থাকিনা কেন। আজ সকালটি সেই রুটিনের ব্যতিক্রম। গত বছরে তাঁকে আমি হারিয়েছি।

আজ সারাটা দিন ধরে আমি আমার মায়ের কথা ভেবেছি। তিনি ছিলেন আমার জীবনের সবচেয়ে কাছের নারী। তাঁকে আমি সবচেয়ে বেশি ভালবাসতাম আর শ্রদ্ধা কারতাম। তিনি ছিলেন একাধারে আমার ঘনিষ্ঠ বন্ধু এবং গুরু। আজ সারাদিন আমার তরুণ বয়েসের স্মৃতি আর তাকে জড়িয়ে আমার মায়ের স্মৃতি ভেসে ভেসে এসেছে।

আমার মা, শুচিস্মিতা সেন, ছিলেন প্রকৃতই একজন ব্যতিক্রমী নারী। তিনি ছিলেন সাদামাটা বিএ পাস। তার কারণ তিনি ছিলেন যে সময়ের মানুষ, তখন মেয়েদের কেউ ঊচ্চশিক্ষার জন্যে যোগ্য ভাবতে শেখেনি। তাছাড়াও তখনকার সামাজিক রীতি আনুযায়ী, মাত্র ১৮ বছর বয়সেই, ১৯৬০ খ্রিস্টাব্দের অক্টোবর মাসে মায়ের বিয়ে হয় আমার বাবা কলকাতা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ডাক্তার শ্রী কালীকিঙ্কর সেনের সঙ্গে। বাবা তখন ৩২ বৎসর বছর বয়সের পূর্ণ যুবা, এবং কলকাতায় ডাক্তার হিসেবে তাঁর নামডাক বেশ শুরু হয়েছে।

এই বিয়ের ঠিক এক বছরের মধ্যে আমার দিদি, রুবির জন্ম হয়। দিদির সঙ্গে ছেলেবেলায় অবিরাম খুনসুটি করে আর খেলাধুলোয় কেটেছে। এরপর মা, মূলতঃ বাবার অবিরাম উৎসাহে, আবার পড়াশুনো শুরু করেন। শুনেছি, আমাকে পেটে নিয়েই আমার মা বিএ পরীক্ষা দেন এবং সসম্মানে ঊত্তীর্ণ হন। কিন্তু, ১৯৬৪ খ্রিস্টাব্দের ১৮ই জুন আমার জন্মের পর মায়ের আর প্রাতিষ্ঠানিক পড়াশুনো করা হয়ে ওঠেনি।

তবুও তাঁর অসাধারণ মেধার বলে তিনি তাঁর পড়াশুনোর যাবতীয় ঘাটতি পুরন করেছিলেন। বিশেষ করে সাহিত্যে ছিল তাঁর উল্লেখযোগ্য দখল। সংসারের সকল বাধা অতিক্রম করে আমার মা চিরদিন প্রচুর পড়াশুনো করে যেতে পেরেছিলেন।

মা নিয়মিত লিখতেন বিবিধ বিষয়ের উপরে – পদার্থবিদ্যা থেকে দর্শন; যদিও সে লেখা কখনও প্রকাশিত হয়নি। তিনি বেশ কিছু গল্প ও কবিতা রচনা করেছিলেন। কেবলমাত্র বারোটির মত প্রকাশিত হয়েছিল – তার মূখ্য কারণ মার প্রকাশনার প্রতি এক রকমের অনুৎসাহ। প্রকাশিত গ্রন্থগুলি পাঠক পাঠিকারা অভাবনীয় জনপ্রিয়তার স্বীকৃতি দিলেও তা মাকে আরও লেখা প্রকাশিত করতে অনুপ্রাণিত করেনি। মা লিখতেন কেবল তাঁর নিজের সৃষ্টিসুখের জন্য এবং সেজন্যে তাঁর বেশীরভাগ সাহিত্য রচনাই ডায়েরি এবং লেখার খাতার মধ্যেই সীমাবদ্ধ ছিল। কেবল আমারই তাঁর সমস্ত সাহিত্যসৃষ্টি পড়ার সৌভাগ্য হয়েছে।

আমার দিদি, রুবি সেন, দিল্লির St. Stephens College-এ ইংরেজিতে অনার্স নিয়ে ভর্তি হয় ১৯৭৯ সালে এবং তার তিন বছর পর পাস করেই ঢুকে পড়ে IIM-Ahmedabad থেকে মার্কেটিং-এ পিজিডিএম করতে। দুটি ক্ষেত্রেই দিদিকে হস্টেলে থাকতে হত। আর বাবা থাকতেন সর্বক্ষণ তাঁর রুগীদের নিয়ে। তাই আমার বড় হয়ে ওঠার কৈশোরবেলার দিনগুলোয় দিদি নয়, মায়ের কাছেই আমার সাহিত্য রসাস্বাদনের শিক্ষালাভ; স্কুলের পাঠে অঙ্ক ও বিজ্ঞানের তরী তাঁর হাত ধরেই পার করেছিলাম। স্কুলের উঁচু ক্লাসে ওঠার পর, আমার বহু সহপাঠী তাঁর ছাত্র হয়েছিল। এমনকি যখন আমি কলেজে পড়ি আমাকে বহু কঠিন প্রশ্নের সমাধান করতে সাহায্য করতেন আমার মা।
মার ক্ষুরধার বুদ্ধি তাঁর চিন্তাভাবনায় ব্যতিক্রমী স্বচ্ছতা দিয়েছিল। তাঁর ভাবনাচিন্তা কখনই সংরক্ষণশীলতায় ভারাক্রান্ত ছিল না এবং আশেপাশের সকলকেই তিনি উৎসাহ দিতেন যে কোনও বিষয় সর্বত্র খোলা মনে, যুক্তির আলোয় বিচার করতে।
মার তেজস্বিনী স্বভাব, মর্যাদাসম্পন্ন ব্যবহার ও সম্মোহিনী ব্যক্তিত্বর জন্যে তাঁকে বহু মানুষের মধ্যেও আলাদা করে চেনা যেত। সেইজন্যে বন্ধুবান্ধব ও আত্মীয়স্বজনের মধ্যে তাঁর গুণগ্রাহীর সংখ্যা ছিল অগণিত।
তাঁর একমাত্র সন্তান হিসেবে মায়ের অগাধ বিদ্যাবুদ্ধি ও নবীন চিন্তাধারার ছোঁয়ায় আমার চিন্তাশক্তি বিশেষ পুষ্টি লাভ করেছিল। মনে পড়ে আমার কিশোর বয়সের বেড়ে ওঠার যাবতীয় স্বাভাবিক সমস্যার দিনগুলিতে মা-ই ছিলেন আমার বন্ধু ও অবিভাবক।

1 user likes this post fer_prog
Quote

মা সর্বদা আমাকে তাঁকে লুকিয়ে কোনও কাজ করা অথবা ভীরু অন্যান্য কার্যকলাপের বিরুদ্ধে অনুপ্রাণিত করেছিলেন। কিন্তু, মুশকিল ছিল, কিশোরবেলার সেই বড় হয়ে ওঠার সময়ের সেই দিনগুলিতে সকল গোপন কথা সম্পূর্ণ খোলাখুলিভাবে নিজের মাকে বলতে পারা যায় না। মা আমার সেই লজ্জারুণ দ্বিধা ও বাধা কাটিয়ে ওঠায় নিদারুণ সাহায্য করেছিলেন।

তিনি প্রায় প্রমাণই করে ছেড়েছিলেন যে তিনি আমার যে কোনও গুপ্ত কাজ জানতে পারবেনই। এছাড়াও তাঁর অদ্ভুত ক্ষমতা ছিল আমার মনের লুকোন কথা পড়ে ফেলার, এবং আমি বমালসমেত ধরা পড়ে যেতাম অথবা মা আমার কীর্তিকলাপ স্বীকার করতে বাধ্য করতেন। এমনই একটি ঘটনার বর্ণনা দিচ্ছি:

সে সময়কার দিনে প্রাপ্তবয়স্ক ছবির সংখ্যা ভারতে ছিল নগণ্য। তাদের মধ্যও, যাইবা মুক্তি পেত, সেসব এখনকার রগরগে ছবির তুলনায় ছিল নিতান্তই তুচ্ছ।
আমাদের ইন্টারমিডিয়েট পরীক্ষার পর (এপ্রিল ১৯৮২) , একটি তথাকথিত “প্রাপ্তবয়স্ক” ও “A” মার্কা ছবি মুক্তি প্রাপ্ত হয়েছিল – তখনকার দিনের গরম নায়িকা বো ডেরেকের “টারজান দ্য এপম্যান” । কয়েকজন বন্ধু ও আমি ছবিটি দেখার জন্যে রীতিমত উদগ্রীব ছিলাম – কোনও বাধাও ছিলনা কারণ আমরা সকলেই তখন আঠারো অতিক্রম না করলেও (আঠারোতে পা দিয়েছি প্রায় মাস দশেক), করব শিগ্‌গিরই; অর্থাৎ প্রাপ্তবয়স্ক বলা চলে।

আমরা ছবিটি দেখার প্ল্যান করেছিলাম বটে, কিন্তু লুকিয়ে – বাড়িতে কাউকে বলিনি আমরা কেউই। একদিন সুযোগও এসে গেল; কলেজে একদিন অর্ধদিবস ছুটি ঘোষিত হল। এ কথা আমরা ছুটির একদিন আগে জানতে পেরে সমস্ত প্ল্যান ছকে নিলাম।

সেইদিন যথারীতি ক্লেজে যাবার জন্যে তৈরি হচ্ছি, মা হঠাৎ বললেন, “ বাবু, আজ তো তোদের কলেজে হাফ ডে না? ছুটির পরই বাড়ি চলে আসিস; আমরা আজ দুপুরে একসঙ্গে খাব।“

এরপর ছবি দেখতে যাওয়ার প্রশ্নই ওঠে না – হতাশ হয়ে সেদিন আমায় মাতৃ আজ্ঞা পালন করে ছুটির পরই বাড়ি আসতে হয়েছিল।

সেদিন বাড়ি আসতেই মা বললেন, “স্নান করে আয় তাড়াতাড়ি, খেয়েদেয়ে আমরা আজ ম্যাটিনি শোএ বই দেখতে যাব।” আমি থম্‌কে দাঁড়িয়ে জিজ্ঞেস করলাম, “কোন্‌ বই মা?” মা বললেন, “কেন রে বোকা ছেলে, “টারজান দ্য এপম্যান!” বলে, আমার গালে চুমো খেলেন, “জানতাম তুই এই বইটি দেখার জন্যে হাঁ করে রয়েছিস। কিন্তু কী জানিস, তুই যে আমায় লুকিয়ে বন্ধুদের সঙ্গে দেখতে যাবার প্ল্যান করেছিলি এটা মোটেই আমার ভালো লাগেনি। তাই কেমন সেটা বান্‌চাল করে দিলাম বল্‌ দেখি!” মা দুষ্টু হাসলেন।
“কিন্ত, তুই বড় তো হয়েছিস, এডাল্ট বই কেন দেখবি না? তাই চল্‌ আজকের ম্যাটিনি শোয়ে; আমরা দুই প্রাপ্তবয়স্ক মানুষ একসঙ্গে দেখব বইটা।”

মার মুখ থেকে এই কথা শোনার পর তাঁর প্রতি আমার শ্রদ্ধা কয়েকগুণ বেড়ে গেল। ভাল করেই বুঝতে পারলাম যে মা যে আমায় ছবিটি দেখতে দেবেন না, আমার এ আশঙ্কা নিতান্তই অমূলক। মা আমার প্রাপ্তবয়স্ক হয়ে ওঠাকে পূর্ণ মর্যাদা দিয়ে সেদিন আমায় ছবিটি দেখতে নিয়ে গেলেন।

মার পাশে বসে বো ডেরেকের অনাবৃত স্তনের দিকে পূর্ণ দৃষ্টিতে তাকাতে রীতিমত অস্বস্তি হচ্ছিল, আরও বেশি অস্বস্তি হচ্ছিল টারজান আর জেনের নিবিড় চুম্বন দৃশ্যগুলির সময়ে। আমি চোখ নামিয়ে নিতেই মা আমার বাম ঊরুতে তাঁর ডান হাতখানি রেখে মৃদুস্বরে বললেন, “লজ্জার কিছু নেই। এইগুলি দুটি প্রাপ্তবয়স্ক নারী পুরুষের মধ্যে খুবই স্বাভাবিক। বইটিতো চমৎকার উত্তেজনায় ভরা। মন খুলে দেখ”।

মায়ের এই কথায় আমার যাবতীয় আড়ষ্টতা চলে গেল এবং ছবিটি উপভোগ করতে শুরু করলাম। ছবিটির কাহিনীটি বেশ ভাল, টানটান উত্তেজনায় ভরা। টারজান ও জ়েনের নিবিড় মুহূর্তগুলিও সমান উত্তেজনাকর। ছবির শেষের দিকে যখন টারজানের হাত জেনের স্তন পীড়ন করছিল, মা আমার বাম হাতে হাত রেখে মৃদুস্বরে মন্তব্য করলেন, “লজ্জা নেই, দেখ্‌ ।”

ছবির শেষে মা বললেন, “তোরটা শক্ত হয়ে যায় নি তো? যদি হয়ে গিয়ে থাকে, আমরা চল্‌ ওয়েট করি, সবাই বেরিয়ে যাক, আমরা তার পর উঠব।” এবার মায়ের এই কথায় তেমন অস্বস্তি করিনি – মা আমার পুরুষাঙ্গের কাঠিন্য নিয়ে আমায় আগেই সহজ হতে শিখিয়ে দিয়েছিলেন।

সেদিন সকালে ঘুম থেকে ওঠার সময় দেখি মা আমার পায়ের দিকে বিছানায় বসে। তাঁর হাসিমুখ দেখে ঘুম ভাঙ্গার খুশির সঙ্গে সঙ্গে আমার লিঙ্গের দৃঢ়তা আমায় কিছুটা অস্বস্তিতে ফেলে দিয়েছিল। এমনিতেই তখন বড় হচ্ছি এবং লিঙ্গের আকারও বৃদ্ধিপ্রাপ্ত হচ্ছে – এই নিয়ে একেই আমার অস্বস্তির শেষ ছিল না। হঠাৎই অসময়ে লিঙ্গের কাঠিন্য ততোপরী বিভ্রান্তিকর। সেইদিন সকালে প্যান্টে তাঁবু হয়ে থাকা অবাধ্য পুরুষাঙ্গ নিয়ে কোথায় লুকোব ভেবে পাচ্ছিলাম না।

মা দেখলেন আমার ত্রাস, মধুর হেসে বললেন, “কিচ্ছু লজ্জা করতে হবে না; তরুণ বয়সে এসব একদম স্বাভাবিক। তোর এই সোনাটা এখন শক্ত হয়ে যাওয়ার বহু কারণ আছে – তোর পেট হয়তো পেচ্ছাপে ভর্তি, সারারাত করিসনি তো!”

মা আমার ঊচ্ছৃত লিঙ্গে চকিতে হস্তমৈথুনের ভঙ্গিতে তাঁর ডান হাত দিয়ে উপর নিচে করে আদর করে বললেন, “তুই কি নিয়মিত হাত দিয়ে রস বার করে কামাবেগ প্রশমিত করিস, নাকি তোর স্বপ্নস্খলন হয়?”

আমি স্বমেহনের কথা বলতেই মা বললেন, “বাঃ! এটাই ভাল, হাত দিয়ে যে সুখ পাওয়া যায়, তা সুপ্তিস্খলনে নেই।”

মায়ের ব্যবহার আমার সঙ্গে এতটাই খোলামেলা ও উদার ছিল যে আমার বড় হওয়ার সময় কোনও পাপ কিম্বা লজ্জা বোধ স্থান পায়নি। তাতে আমার আত্মপ্রত্যয় এবং ব্যক্তিত্বের যথাযথ বিকাশ ঘটেছিল। পড়াশুনোর ক্ষেত্রেও বোধকরি এরই ফলে ও মায়ের সহায়তায় আমি খুবই কৃতি ছাত্র ছিলাম।

মা সম্পূর্ণ অবগত ছিলেন যে আমার যৌন আকাঙক্ষা ছিল অতি প্রবল। বেশ কয়েকবার মা আমার নিভৃত, গোপন আকাঙক্ষাসমূহ বাইরে এনে স্বাভাবিক সুন্দরভাবে প্রকাশে সহায়তা করেছিলেন। তাঁর পরিণত হাতের ছোঁয়ায় সেই পরিস্থিতগুলিতে আমার এতটুকু অসুবিধা হয়নি।

অনাবৃত নারীশরীরের প্রতি আমার আকর্ষণ ও কামনা ছিল তীব্র। বন্ধুদের কাছ থেকে আমি কিছু রগরগে অশ্লীল বই ও ম্যাগাজিন যোগাড় করে আমার খাটের তোষকের নিচে লুকিয়ে রেখেছিলাম। একলা ঘরে আমি সেই বইগুলোর বিবস্ত্র রমণীদের দেখে আমি রোজ হস্তমৈথুন করতাম। একদিন ইস্কুল থেকে ফিরে এসে দেখি সেই বইগুলি আমার বিছানার তলা থেকে অদৃশ্য। কিছুক্ষণ পর মার ঘর থেকে ডাক শুনে আমি সেখানে যেতেই চমকালাম। মা নিজেদের বিছানায় পা মুড়ে বসে আছেন আর তাঁর সামনে আমার হারানো বইগুলো ছড়ান।

প্রচন্ড ধমকের আশঙ্কায় আমি মার দিকে দুরু দুরু বুকে, মাথা নিচু করে এগিয়ে গেলাম।
“তোর কি এই ছবিগুলো খুব পছন্দ?” নরম, স্নেহের সুরে আমি মুখ তুলতেই দেখি মার মুখে অনাবিল হাসি। সেই বরাভয় হাসি আমার ভীতি দূর করে দিল, যদিও আমি তখনও লজ্জিত ও বিহ্বল। আমি অবনত চোখে, নিরুচ্চারে মাথা নাড়লাম। মা হাত বাড়িয়ে আমায় আকর্ষণ করলেন ও বিছানায় তাঁর সামনে বসালেন। তারপর মা দুই হাতের অঞ্জলিতে আমার দুই গাল ধরে বললেন, “বাবু, আমার দিকে তাকা!”

আমি চোখ তুলে চাইতে, মা আমার চোখে চোখ রেখে বললেন, “আমার মানিক, নগ্ন নারীশরীরের ছবি তোর কিশোর মনে ঝড় তুলবে এতো খুবই স্বাভাবিক। কিন্তু কী জানিস, মেয়েদের যে সব ছবি তুই দেখছিস, তা বাস্তবের নয় – বরং তা পুরোটাই কৃত্রিম এবং নোংরা, অসুস্থ মনের সৃষ্টি। এজন্য এসব এড়িয়ে চলাই ভাল। মহান শিল্পীরা – চিত্রকর, ভাস্কর এবং ফটোগ্রাফার – অসংখ্য কাজ রেখে গেছেন। রুচিবান পুরুষ হিসেবে তুই সেই সব মহান সৃষ্টির রসাস্বাদন করতে শেখ। আমি তোর জন্যে সেইসমস্ত ফটোগ্রাফ আর পেইন্টিং দেখার ব্যবস্থা করছি।”

পরেরদিনই আমি সমস্ত বই ও ম্যাগাজিন বন্ধুদের ফেরৎ দিয়ে দিয়েছিলাম, আর মাও বেশ কিছু দুর্মূল্য বই কিনে এনেছিলেন – যার উৎকৃষ্ট আর্ট পেপারের প্লেটে প্লেটে ছিল নগ্ন নারী অবয়বের ছড়াছড়ি। এছবিগুলো আমার রক্তে আগুন ধরিয়ে দিয়েছিল।

আমি আঠারো বছরে পা দিতেই হতেই মা আমাকে একজন প্রাপ্তবয়স্ক পুরুষ হিসেবে সম্মান দিয়েছিলেন এবং আমার দৈহিক চাহিদাকে তাঁর স্বীকৃতি দিয়েছিলেন।

Quote

মায়ের ভিটেবাড়িতে


মায়ের পিতৃপুরুষের ভিটেবাড়ি ছিল অধুনা পশ্চিমবঙ্গের উত্তর চব্বিশপরগণা জেলায় গোবরডাঙ্গার একটি প্রত্যন্ত গ্রামে; প্রতি বছরই আমি আর মা গরমের ছুটিতে গাঁয়ে আসতাম।

সেই সময়ে ভারতের গ্রামগুলিতে তখনও বিদ্যুৎ ভালো করে পৌঁছয় নি। আমাদের গ্রামে বিদ্যুৎ তখন সবে আসছে – কতিপয় বিশেষ সম্পন্ন বাড়িতে প্রাথমিকভাবে বিদ্যুৎ এসেছে, আমাদের বাড়ি তার মধ্যে একটি। তাও বৈদ্যুতিক আলো এসেছে বটে, পাখা নয়।

এছাড়া, বাথরুম-পায়খানাও ছিল একদমই সেকেলে ব্যবস্থা অনুযায়ী – বসত বাড়ির থেকে দূরে।
স্নানের ব্যপারে একটি পুকুরই ছিল একমাত্র উপায়। পুকুরটি ছিল বসতবাড়ির অদূরেই পিছনদিকে এবং কেবলমাত্র আমাদের পরিবারেরই সদস্যদের ব্যবহারের জন্যে নির্দিষ্ট।

বাড়ির পিছনেই ছিল স্নানের জন্য একটি সুচারু রূপে নির্মিত সিমেন্ট বাঁধানো ঘাট – প্রস্থে প্রায় কুড়ি ফুট। ঘাটের প্রতিটি ধাপ ছিল প্রায় সওয়া দু’ফুট চওড়া, যাতে মেয়েরা তাতে বসে অবলীলায় কাপড় কাচতে, কিম্বা চান করতে পারে। ধাপগুলি থাকে থাকে নেমে গেছিল ডুব জলে।

পুকুরটির চতুর্দিকে ছিল কাঁটাতারের বেড়া, এবং অন্যান্যদের দৃষ্টি থেকে আড়াল করার জন্য ঘনসন্নিদ্ধ উদ্ভিদের ঝোপ ও গাছপালার আবরণ।

পুকুর ঘাটটির বামদিকের প্রায় অর্ধেক অঞ্চল ছিল দুই দিকে উঁচু দর্মার বেড়ায় ঘেরা; অন্য দু’দিক – ঘাটে যাওয়া ও পুকুরে নামার দিক ছিল উন্মুক্ত। এই জায়গাটি ছিল বাড়ির স্ত্রীলোকেদের স্নানাদির জন্য নির্দিষ্ট।

মায়ের এই ভিটা বাড়িতে কেবল আমার দিদিমা পাকাপাকিভাবে বাস করতেন।

১৯৮৩ সালে যখন আঠেরো পূর্ণ করব, সেই গরমের ছুটিতে গাঁয়ে গিয়ে দেখি আমাদের দুই দূরসম্পর্কের আত্মীয়াও এসেছেন সপ্তাহ দুয়েকের জন্যে। এঁরা দুজনেই মার ছেলেবেলার বন্ধু।
এঁদের একজনকে আমি মাসি ও অন্যজনকে মামিমা বলে সম্মোধন করতাম। এঁদের সঙ্গে এঁদের দুই মেয়েও এসেছিল। মেয়েদুটি দুজনেই ছিল অতিশয় কমবয়সী; তাই আমার সঙ্গে ঠিক ততোটা জমেনি।

ফলে, একাকিত্ব লাঘব করতে, সারাদিন আলস্যে কাটানো তিন বয়োজ্যেষ্ঠ রমণীর সঙ্গই আমার প্রাপ্তিসাধ্য ছিল এবং আমি করেছিলামও তাই – তাঁদের সঙ্গেই কাটিয়েছিলাম গ্রীষ্মাবসরের দু’সপ্তাহ।

১৮ই জুন ১৯৮২

মা নিয়ম করে প্রতিদিন সকালে আমার শোবার ঘরটিতে এসে এককাপ ধূমায়িত চা নিয়ে আসতেন।

আমার অষ্টাদশ জন্মদিনের সকালটিতে উঠে আমি যথারীতি দাঁত মেজে, দাড়ি কামিয়ে অলস হয়ে বিছানায় চিৎ হয়ে শুয়ে চায়ের অপেক্ষা করছি।

মা হাতে একটি অপূর্ব সুন্দর রাঙা পুস্পস্তবক হাতে ঘরে এলেন। তাকিয়ে দেখলাম তাঁর সদ্যোস্নাত অপরূপ রূপ, একটি নতুন গোলাপি শাড়িতে বিভাসিত। মার মুখের হাসিতে আনন্দের আলোর ছটা, “প্রাপ্তবয়সের জগতে সাদর অভ্যর্থনা জানাই,” ব’লে তিনি মাথার কাছে এসে আমার দিকে পুস্পস্তবকটি বাড়িয়ে দিলেন। মায়ের কোমর সমান আকুঞ্চিত খোলা চুল পিঠের উপর নেমেছে ঝাঁপ দিয়ে, তাতে ধুপের সুগন্ধ; সিঁথিতে টকটকে সিঁদুর জ্বলজ্বল করছে তাঁর নিচে উন্নত কপাল; কপালের সৌন্দর্য আরও লালিত্যময় করেছে নিচের ঘনকালো ও দীর্ঘ জোড়া ভুরু আর তাদের মাঝখানে একটু উপরে সিঁদুরের বড় গোলাকার একটি টিপ । টানা টানা প্রতিমার মত চোখে আমার দিকে তাকিয়ে আবার হাসলেন। হাসিতে তাঁর দুই চোখে জ্যোৎস্নার কিরণ; তাঁর অনতিদীর্ঘ নাকের পাটা সামান্য ফুলে উঠল।

আমি অবাক আনন্দে, হেসে সেটি হাত বাড়িয়ে নিতেই আমার মা ঘুরে, পিছন ফিরে, দরজাদুটি আস্তে করে ভেজিয়ে খিল দিলেন। ফিরে এসে বিছানায় আমার পায়ের ধারে বসলেন পা দুটি ঝুলিয়ে দিয়ে। তারপর শরীর নিছু করে আমার বুকের উপর ঝুঁকে এলেন; ডান হাত দিয়ে আমার পিঠ এবং বাম হাত দিয়ে আমার ঘাড় বেষ্টন করে নিবিড় আলিঙ্গন করলেন। তাঁর বস্ত্রাবৃত কোমল দুই স্তনের ভার আমার উদ্‌লা বুকে, তাঁর শরীরের স্নিগ্ধ সুগন্ধ আমার চেতনাকে এক অনাস্বাদিত মোহে নিমজ্জিত করল।

আমি পরম ভালোবাসায় তাঁর গালে চুমো খেলাম। মা আমার দুই চোখে ভিজে চুমু দিয়ে তাঁর মুখখানি সামান্য তুলে আমার চোখে চোখ রেখে, নিচু স্বরে প্রায় ফিস্‌ফিস করে বললেন, “আজ তোকে তোর জন্মদিনে একটি অন্তরঙ্গ চুমু উপহার দেবো। এ চুমো মায়ের চুমো নয় – এ চুমু একটি পুরুষের প্রতি তার নারীর চুমু”।

এই বলে মা তাঁর বাম হাতটি আমার মাথার তলায় রাখলেন, ডান হাতটি পিঠের তলা থেকে বার করে এনে আমার বাম গালে আদর করলেন উপর নিচে বুলিয়ে কিছুক্ষণ। আমার চোখের গভীরে নিবিড় ভালোবাসার দৃষ্টি মেলে মা তাকিয়ে ছিলেন সেই অপার্থিব সময়টুকু। তারপর মা তাঁর মুখ নামিয়ে আমার মুখে। তাঁর ওষ্ঠাধরের সুমধুর যুগপৎ স্নেহ ও কামনাভরা সেই চাপে গলে যাচ্ছিল আমার সর্বশরীর, আমার ঠোঁটদুটি ধীরে ধীরে ফাঁক হয়ে এল। মা তাঁর থুতুভেজা নরম ও কবোষ্ণ জিভটি প্রবেশ করিয়ে দিলেন আমার মুখবিবরে। আমি আমার জিভ দিয়ে আদর করলাম তাঁর জিভে, তারপর দুই ঠোঁট জড়ো করে চুষে চললাম পরম আদরে আমার মায়ের মুখের সেই স্বর্গীয় মাংসপিন্ডের যাবতীয় লালা ও জিহ্বারস।

সুদীর্ঘ এই চুম্বনের মাঝে হঠাৎ সচেতন হয়ে উঠলাম যে আমার বুকে মায়ের স্তনভারের সঙ্গে গোটা শরীরের ভারও যুক্ত হয়েছে। মা তাঁর দুই পাই বিছানায় তুলে এনে আমার শরীরের উপর বিছিয়ে দিয়েছেন। আমার উপর তিনি এখন উপুড় হয়ে শুয়ে। আমি আমার দুই হাত দিয়ে তাঁর পিঠ বেষ্টন করলাম। মা তখন তাঁর জিভ টেনে নিয়েছেন আমার মুখের ভিতর থেকে; অমনি পিছু পিছু ধেয়ে গেছে আমার জিভ। প্রবেশের চেষ্টা করতেই মার মুখগহ্বর শোষণ করে সেটিকে টেনে নিয়েছে তাঁর মুখের ভিতরে। মা জিভ দিয়ে পরম আশ্লেষে চুষে খেলেন আমার জিভের লালারস।

এবার অনুভব করলাম আমার পুরুষাঙ্গ উত্তপ্ত ও কঠিন হয়ে মার ঊরুদেশ বিদ্ধ করছে। যেহেতু আমি মার নিচে চিৎ হয়ে শুয়ে ছিলাম – আমার করার কিছু ছিল না। মনে হল মা একবার তাঁর কোমর নাড়ালেন। এবারে তাঁর অতিকোমল জঘনসন্ধি চেপে বসল আমার ঊচ্ছৃত পুরুষাঙ্গে। মা আমায় চুমু খেতে খেতে পাছা নাড়িয়ে আরও জোরে চেপে ধরলেন তাঁর যোনিদেশ। চেপে ধরার সঙ্গে সঙ্গে তাঁর জিভ আবার প্রবেশ করল আমার মুখের মধ্যে, তাঁ দু’হাত মুঠো করে ধরেছে আমার চুল। এবার মা তাঁর পাছা তুলে চাপ কমিয়ে নিলেন আর বের করে নিলেন তাঁর জিভ আমার মুখ থেকে। আমি থাকতে না পেরে নামিয়ে আনলাম আমার দুই হাত মার শাড়ি দিয়ে ঢাকা নিতম্বদেশে। গুরু মাংসল নিতম্ব আমার হাতের নিচে খলবল করে দুলে উঠল। দুই নির্মম হাতে পীড়ন করলাম আমার মায়ের পাছা, জিভ আবার ঢুকিয়ে দিলাম মায়ের মিষ্টি মুখের গভীরে; অশান্ত হাত দুটো নিয়ে এলাম তাঁর অনাবৃত কটিদেশে। আমার হাত ভিজে গেল মায়ের শরীরের বিন্দু বিন্দু ঘামে।

আস্তে আস্তে মা উঠে বসলেন, “আমি জানি জীবনে নারীকে অনেক চুমু খাবি। কিন্তু, আমি তোকে প্রথম চুমু খাওয়ার স্বাদ নিতে চেয়েছিলাম। তাই আমি এই দিনটির জন্যে অপেক্ষা করে ছিলাম”।

আমি হাসলাম, “এর চেয়ে ভাল জন্মদিনের উপহার আর কী থাকতে পারে?”

মা বেরিয়ে যাবার পরেও আমি বিছানায় শুয়েছিলাম অনাস্বাদিতকে পাওয়ার অপরিসীম আলস্যে। এমনসময় মাসি আর মামিমা হাতে জন্মদিনের উপহার নিয়ে ঢুকলেন ঘরে। দু’জনে মিলে একসঙ্গে গাইলেন, “হ্যাপি বার্থডে টু য়ু”। তাঁদের দিকে ভালো করে তাকাতেই বুঝলাম তাঁরা ঘুম থেকে উঠেই চলে এসেছেন এঘরে – গায়ে কেবল একখানি শাড়ি আগোছালো করে পরা, দুজনেই ব্রা বা ব্লাউজ কিছুই পরেননি।

মাসি আমার হতবাক দৃষ্টি দেখে বললেন, “আমরা তো একজন সদ্য বয়ঃপ্রাপ্ত তরুণকে শুভেচ্ছে জানাতে এসেছি, তাই ভাবলাম সেই যুবকটি আমাদের এইভাবে দেখতে ভালোবাসবে!”

মাসি খাটের পাশে দাঁড়িয়ে কোমর ভেঙ্গে আমার উপর উপুড় হয়ে শুয়ে দুই হাত দিয়ে জড়িয়ে ধরে আদর করলেন। তাঁর বন্ধনহীন পৃথুল স্তনদ্বয় আমার অনাবৃত বুকে চেপে বসেছিল; তাঁর পরা ফিনফিনে শাড়ির ভিতর দিয়ে তাঁর জেগে ওঠা স্তনবৃন্ত দুটির স্পর্শ অনুভব করছিলাম। এবারে মামিমা তাঁর বুকটি আমার বুক থেকে সামান্য তুলে আমার ঠোঁটে ত্বরিত একটি চুমো খেলেন; চুমো খাবার সময় তাঁর দুলন্ত স্তনদুটি দিয়ে আমার বুকে মাঝে মাঝেই মনোরম ঘসে দিচ্ছিলেন।
এরপর মামিমা যখন আমার বুকে আধশোয়া হয়ে তাঁর স্তনদুটি পিষ্ট করে গভীর চুম্বন এঁকে দিচ্ছেন আমার ঠোঁটে – দুই রমণীর আদরে আমার পুরুষাঙ্গ হয়ে উঠল লোহার মত কঠিন।

মামিমা আমার শক্ত হয়ে ওঠা লিঙ্গ দেখে মুচ্‌কি হেসে মাসিকে শুধোলেন, “হ্যাঁরে সীমা, বাবুকে আজ আমাদের তার জন্মদিনের পোষাকেই তো দেখা উচিত, না?”

মাসি কোনও মন্তব্য করলেন না দেখে মামিমা আবার বললেন, “দিন তো সবে শুরু, আমরা বাবুর জন্মদিনের পোষাকের অনুষ্ঠান পরে কোনও এক সময়ে পালন করবো”।

4 users like this post milfhunter1983, samuin, bikisuni, nangubaba
Quote

nice the all

Quote

nice the story

1 user likes this post Aditikhanki
Quote

প্রকিত পক্ষেই এটি শক্তিশালী লেখকের লেখা একটি সুন্দর গল্প। আন্তরিক ভালবাসা রইল লেখকের প্রতি।

Quote

খুব সুন্দর গল্প

Quote

সুন্দর গল্প। ফন্ট সাইজ টা একটু বড় দরকার। বাংলায় ছোট তে পড়তে অসুবিধে হয়।
Reps Added

Quote

Khub bhalo Lekha, onno style, mom tanbe.

Quote

(26-08-2013, 11:47 PM)dirtyboy : মায়ের ভিটেবাড়িতে


মায়ের পিতৃপুরুষের ভিটেবাড়ি ছিল অধুনা পশ্চিমবঙ্গের উত্তর চব্বিশপরগণা জেলায় গোবরডাঙ্গার একটি প্রত্যন্ত গ্রামে; প্রতি বছরই আমি আর মা গরমের ছুটিতে গাঁয়ে আসতাম।

সেই সময়ে ভারতের গ্রামগুলিতে তখনও বিদ্যুৎ ভালো করে পৌঁছয় নি। আমাদের গ্রামে বিদ্যুৎ তখন সবে আসছে – কতিপয় বিশেষ সম্পন্ন বাড়িতে প্রাথমিকভাবে বিদ্যুৎ এসেছে, আমাদের বাড়ি তার মধ্যে একটি। তাও বৈদ্যুতিক আলো এসেছে বটে, পাখা নয়।

এছাড়া, বাথরুম-পায়খানাও ছিল একদমই সেকেলে ব্যবস্থা অনুযায়ী – বসত বাড়ির থেকে দূরে।
স্নানের ব্যপারে একটি পুকুরই ছিল একমাত্র উপায়। পুকুরটি ছিল বসতবাড়ির অদূরেই পিছনদিকে এবং কেবলমাত্র আমাদের পরিবারেরই সদস্যদের ব্যবহারের জন্যে নির্দিষ্ট।

বাড়ির পিছনেই ছিল স্নানের জন্য একটি সুচারু রূপে নির্মিত সিমেন্ট বাঁধানো ঘাট – প্রস্থে প্রায় কুড়ি ফুট। ঘাটের প্রতিটি ধাপ ছিল প্রায় সওয়া দু’ফুট চওড়া, যাতে মেয়েরা তাতে বসে অবলীলায় কাপড় কাচতে, কিম্বা চান করতে পারে। ধাপগুলি থাকে থাকে নেমে গেছিল ডুব জলে।

পুকুরটির চতুর্দিকে ছিল কাঁটাতারের বেড়া, এবং অন্যান্যদের দৃষ্টি থেকে আড়াল করার জন্য ঘনসন্নিদ্ধ উদ্ভিদের ঝোপ ও গাছপালার আবরণ।

পুকুর ঘাটটির বামদিকের প্রায় অর্ধেক অঞ্চল ছিল দুই দিকে উঁচু দর্মার বেড়ায় ঘেরা; অন্য দু’দিক – ঘাটে যাওয়া ও পুকুরে নামার দিক ছিল উন্মুক্ত। এই জায়গাটি ছিল বাড়ির স্ত্রীলোকেদের স্নানাদির জন্য নির্দিষ্ট।

মায়ের এই ভিটা বাড়িতে কেবল আমার দিদিমা পাকাপাকিভাবে বাস করতেন।

১৯৮৩ সালে যখন আঠেরো পূর্ণ করব, সেই গরমের ছুটিতে গাঁয়ে গিয়ে দেখি আমাদের দুই দূরসম্পর্কের আত্মীয়াও এসেছেন সপ্তাহ দুয়েকের জন্যে। এঁরা দুজনেই মার ছেলেবেলার বন্ধু।
এঁদের একজনকে আমি মাসি ও অন্যজনকে মামিমা বলে সম্মোধন করতাম। এঁদের সঙ্গে এঁদের দুই মেয়েও এসেছিল। মেয়েদুটি দুজনেই ছিল অতিশয় কমবয়সী; তাই আমার সঙ্গে ঠিক ততোটা জমেনি।

ফলে, একাকিত্ব লাঘব করতে, সারাদিন আলস্যে কাটানো তিন বয়োজ্যেষ্ঠ রমণীর সঙ্গই আমার প্রাপ্তিসাধ্য ছিল এবং আমি করেছিলামও তাই – তাঁদের সঙ্গেই কাটিয়েছিলাম গ্রীষ্মাবসরের দু’সপ্তাহ।

১৮ই জুন ১৯৮২

মা নিয়ম করে প্রতিদিন সকালে আমার শোবার ঘরটিতে এসে এককাপ ধূমায়িত চা নিয়ে আসতেন।

আমার অষ্টাদশ জন্মদিনের সকালটিতে উঠে আমি যথারীতি দাঁত মেজে, দাড়ি কামিয়ে অলস হয়ে বিছানায় চিৎ হয়ে শুয়ে চায়ের অপেক্ষা করছি।

মা হাতে একটি অপূর্ব সুন্দর রাঙা পুস্পস্তবক হাতে ঘরে এলেন। তাকিয়ে দেখলাম তাঁর সদ্যোস্নাত অপরূপ রূপ, একটি নতুন গোলাপি শাড়িতে বিভাসিত। মার মুখের হাসিতে আনন্দের আলোর ছটা, “প্রাপ্তবয়সের জগতে সাদর অভ্যর্থনা জানাই,” ব’লে তিনি মাথার কাছে এসে আমার দিকে পুস্পস্তবকটি বাড়িয়ে দিলেন। মায়ের কোমর সমান আকুঞ্চিত খোলা চুল পিঠের উপর নেমেছে ঝাঁপ দিয়ে, তাতে ধুপের সুগন্ধ; সিঁথিতে টকটকে সিঁদুর জ্বলজ্বল করছে তাঁর নিচে উন্নত কপাল; কপালের সৌন্দর্য আরও লালিত্যময় করেছে নিচের ঘনকালো ও দীর্ঘ জোড়া ভুরু আর তাদের মাঝখানে একটু উপরে সিঁদুরের বড় গোলাকার একটি টিপ । টানা টানা প্রতিমার মত চোখে আমার দিকে তাকিয়ে আবার হাসলেন। হাসিতে তাঁর দুই চোখে জ্যোৎস্নার কিরণ; তাঁর অনতিদীর্ঘ নাকের পাটা সামান্য ফুলে উঠল।

আমি অবাক আনন্দে, হেসে সেটি হাত বাড়িয়ে নিতেই আমার মা ঘুরে, পিছন ফিরে, দরজাদুটি আস্তে করে ভেজিয়ে খিল দিলেন। ফিরে এসে বিছানায় আমার পায়ের ধারে বসলেন পা দুটি ঝুলিয়ে দিয়ে। তারপর শরীর নিছু করে আমার বুকের উপর ঝুঁকে এলেন; ডান হাত দিয়ে আমার পিঠ এবং বাম হাত দিয়ে আমার ঘাড় বেষ্টন করে নিবিড় আলিঙ্গন করলেন। তাঁর বস্ত্রাবৃত কোমল দুই স্তনের ভার আমার উদ্‌লা বুকে, তাঁর শরীরের স্নিগ্ধ সুগন্ধ আমার চেতনাকে এক অনাস্বাদিত মোহে নিমজ্জিত করল।

আমি পরম ভালোবাসায় তাঁর গালে চুমো খেলাম। মা আমার দুই চোখে ভিজে চুমু দিয়ে তাঁর মুখখানি সামান্য তুলে আমার চোখে চোখ রেখে, নিচু স্বরে প্রায় ফিস্‌ফিস করে বললেন, “আজ তোকে তোর জন্মদিনে একটি অন্তরঙ্গ চুমু উপহার দেবো। এ চুমো মায়ের চুমো নয় – এ চুমু একটি পুরুষের প্রতি তার নারীর চুমু”।

এই বলে মা তাঁর বাম হাতটি আমার মাথার তলায় রাখলেন, ডান হাতটি পিঠের তলা থেকে বার করে এনে আমার বাম গালে আদর করলেন উপর নিচে বুলিয়ে কিছুক্ষণ। আমার চোখের গভীরে নিবিড় ভালোবাসার দৃষ্টি মেলে মা তাকিয়ে ছিলেন সেই অপার্থিব সময়টুকু। তারপর মা তাঁর মুখ নামিয়ে আমার মুখে। তাঁর ওষ্ঠাধরের সুমধুর যুগপৎ স্নেহ ও কামনাভরা সেই চাপে গলে যাচ্ছিল আমার সর্বশরীর, আমার ঠোঁটদুটি ধীরে ধীরে ফাঁক হয়ে এল। মা তাঁর থুতুভেজা নরম ও কবোষ্ণ জিভটি প্রবেশ করিয়ে দিলেন আমার মুখবিবরে। আমি আমার জিভ দিয়ে আদর করলাম তাঁর জিভে, তারপর দুই ঠোঁট জড়ো করে চুষে চললাম পরম আদরে আমার মায়ের মুখের সেই স্বর্গীয় মাংসপিন্ডের যাবতীয় লালা ও জিহ্বারস।

সুদীর্ঘ এই চুম্বনের মাঝে হঠাৎ সচেতন হয়ে উঠলাম যে আমার বুকে মায়ের স্তনভারের সঙ্গে গোটা শরীরের ভারও যুক্ত হয়েছে। মা তাঁর দুই পাই বিছানায় তুলে এনে আমার শরীরের উপর বিছিয়ে দিয়েছেন। আমার উপর তিনি এখন উপুড় হয়ে শুয়ে। আমি আমার দুই হাত দিয়ে তাঁর পিঠ বেষ্টন করলাম। মা তখন তাঁর জিভ টেনে নিয়েছেন আমার মুখের ভিতর থেকে; অমনি পিছু পিছু ধেয়ে গেছে আমার জিভ। প্রবেশের চেষ্টা করতেই মার মুখগহ্বর শোষণ করে সেটিকে টেনে নিয়েছে তাঁর মুখের ভিতরে। মা জিভ দিয়ে পরম আশ্লেষে চুষে খেলেন আমার জিভের লালারস।

এবার অনুভব করলাম আমার পুরুষাঙ্গ উত্তপ্ত ও কঠিন হয়ে মার ঊরুদেশ বিদ্ধ করছে। যেহেতু আমি মার নিচে চিৎ হয়ে শুয়ে ছিলাম – আমার করার কিছু ছিল না। মনে হল মা একবার তাঁর কোমর নাড়ালেন। এবারে তাঁর অতিকোমল জঘনসন্ধি চেপে বসল আমার ঊচ্ছৃত পুরুষাঙ্গে। মা আমায় চুমু খেতে খেতে পাছা নাড়িয়ে আরও জোরে চেপে ধরলেন তাঁর যোনিদেশ। চেপে ধরার সঙ্গে সঙ্গে তাঁর জিভ আবার প্রবেশ করল আমার মুখের মধ্যে, তাঁ দু’হাত মুঠো করে ধরেছে আমার চুল। এবার মা তাঁর পাছা তুলে চাপ কমিয়ে নিলেন আর বের করে নিলেন তাঁর জিভ আমার মুখ থেকে। আমি থাকতে না পেরে নামিয়ে আনলাম আমার দুই হাত মার শাড়ি দিয়ে ঢাকা নিতম্বদেশে। গুরু মাংসল নিতম্ব আমার হাতের নিচে খলবল করে দুলে উঠল। দুই নির্মম হাতে পীড়ন করলাম আমার মায়ের পাছা, জিভ আবার ঢুকিয়ে দিলাম মায়ের মিষ্টি মুখের গভীরে; অশান্ত হাত দুটো নিয়ে এলাম তাঁর অনাবৃত কটিদেশে। আমার হাত ভিজে গেল মায়ের শরীরের বিন্দু বিন্দু ঘামে।

আস্তে আস্তে মা উঠে বসলেন, “আমি জানি জীবনে নারীকে অনেক চুমু খাবি। কিন্তু, আমি তোকে প্রথম চুমু খাওয়ার স্বাদ নিতে চেয়েছিলাম। তাই আমি এই দিনটির জন্যে অপেক্ষা করে ছিলাম”।

আমি হাসলাম, “এর চেয়ে ভাল জন্মদিনের উপহার আর কী থাকতে পারে?”

মা বেরিয়ে যাবার পরেও আমি বিছানায় শুয়েছিলাম অনাস্বাদিতকে পাওয়ার অপরিসীম আলস্যে। এমনসময় মাসি আর মামিমা হাতে জন্মদিনের উপহার নিয়ে ঢুকলেন ঘরে। দু’জনে মিলে একসঙ্গে গাইলেন, “হ্যাপি বার্থডে টু য়ু”। তাঁদের দিকে ভালো করে তাকাতেই বুঝলাম তাঁরা ঘুম থেকে উঠেই চলে এসেছেন এঘরে – গায়ে কেবল একখানি শাড়ি আগোছালো করে পরা, দুজনেই ব্রা বা ব্লাউজ কিছুই পরেননি।

মাসি আমার হতবাক দৃষ্টি দেখে বললেন, “আমরা তো একজন সদ্য বয়ঃপ্রাপ্ত তরুণকে শুভেচ্ছে জানাতে এসেছি, তাই ভাবলাম সেই যুবকটি আমাদের এইভাবে দেখতে ভালোবাসবে!”

মাসি খাটের পাশে দাঁড়িয়ে কোমর ভেঙ্গে আমার উপর উপুড় হয়ে শুয়ে দুই হাত দিয়ে জড়িয়ে ধরে আদর করলেন। তাঁর বন্ধনহীন পৃথুল স্তনদ্বয় আমার অনাবৃত বুকে চেপে বসেছিল; তাঁর পরা ফিনফিনে শাড়ির ভিতর দিয়ে তাঁর জেগে ওঠা স্তনবৃন্ত দুটির স্পর্শ অনুভব করছিলাম। এবারে মামিমা তাঁর বুকটি আমার বুক থেকে সামান্য তুলে আমার ঠোঁটে ত্বরিত একটি চুমো খেলেন; চুমো খাবার সময় তাঁর দুলন্ত স্তনদুটি দিয়ে আমার বুকে মাঝে মাঝেই মনোরম ঘসে দিচ্ছিলেন।
এরপর মামিমা যখন আমার বুকে আধশোয়া হয়ে তাঁর স্তনদুটি পিষ্ট করে গভীর চুম্বন এঁকে দিচ্ছেন আমার ঠোঁটে – দুই রমণীর আদরে আমার পুরুষাঙ্গ হয়ে উঠল লোহার মত কঠিন।

মামিমা আমার শক্ত হয়ে ওঠা লিঙ্গ দেখে মুচ্‌কি হেসে মাসিকে শুধোলেন, “হ্যাঁরে সীমা, বাবুকে আজ আমাদের তার জন্মদিনের পোষাকেই তো দেখা উচিত, না?”

মাসি কোনও মন্তব্য করলেন না দেখে মামিমা আবার বললেন, “দিন তো সবে শুরু, আমরা বাবুর জন্মদিনের পোষাকের অনুষ্ঠান পরে কোনও এক সময়ে পালন করবো”।

mom is the Sex pathfinder to created new life as friend as sex partner

Quote





Online porn video at mobile phone


yum hindi sex storiesnude photos bollywood heroinestamil amma sex kathaitmile sex commalayalam sex story newindian armpitsdirty stories in tamiltelugu sex stories in realchut hindi storiesindan fackamake chodotamil aunties gallerieswww.desisexstory.comtelugu sex experienceskantutan ng mga batang pinoycomshot videosromantic desi storieskerala xxxhindi sexy booksindian new telugu sex storiessavita bhabhi indian sex comicsdesi aunties sexy picpunjabi kudi hotexbil mang sindoor se bhar diwet auntieskashmiri girl imagesmallu sex video xxxammi ka doodhpadosan sex storieshawas storiesstory sexy in urduprostitutes porn picturesamma sex kathai tamilsexy choot storyshakeela hot wallpaperexbii priyankasexstorys hindisexy underarm picssex stories in exbiidat ass jabcomixdesi real mmsdesi spycamexbii amazingindiansmom ki kahaniyagujrati sexsonali bendre fakestamilnadu hot auntiestelugu aunties sex storieswww.hindi sex khanidesi lund phototelugu atta puku storiesbund punjabisexi piccarindian actresses fakesameture picsmassages turn into sextelugu romantic sex storiesxxx tamil actressesfree videoztelugu maid sex storiesmallu nudexxx story in hindi fontsrupali ki kamuk haweli page 22sexcomics.comMarathiburemej xxxaunty blouse photossaniya mirza nude photosgilma picsmallu sesgand khujlihardcorexxx picshijab porn picsauntys telugunud porn starsmaa ki cudaiindian sex comics savita bhabhiimage of desi auntydoodh pilane walithelugu xxxarpita aunty photoshijra sexy photobhodia ke choute ka balatkar rap xxx ke khanie hindi mstories in hindi bhabhigujarati hot story